সর্বশেষ সংবাদ

প্রথম বারের মত বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর টেকনিশিয়ান কর্তৃক ওভারহোলিংকৃত যুদ্ধ বিমানের হস্তান্তর অনুষ্ঠান

ঢাকা, ০৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ঃ- বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর নিজস্ব টেকনিশিয়ান কর্তৃক বিমান বাহিনীর অত্যাধুনিক যুদ্ধ বিমান ওভারহোলিং শেষে ব্যবহারকারী ফ্লাইং স্কোয়াড্রনের নিকট উক্ত বিমানের হস্তান্তর অনুষ্ঠান সোমবার, ০৩-০৯-২০১৮ তারিখে বিমান বাহিনী ঘাঁটি বঙ্গবন্ধুতে অনুষ্ঠিত হয়।
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা উপদেষ্টা মেজর জেনারেল (অব.) তারিক আহমেদ সিদ্দিক, আরসিডিএস, পিএসসি উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য যে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ০৪ ডিসেম্বর ২০১১ তারিখে বিমান রক্ষণাবেক্ষণে বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বঙ্গবন্ধু এ্যারোনটিকাল সেন্টারের উদ্ধোধন করেন। গত কয়েক বছর ধরে এই সেন্টারে চীনা বিশেষজ্ঞ ও বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর যৌথ উদ্যোগে ঋ-৭ যুদ্ধবিমান ওভারহোলিং করা হচ্ছে। সক্ষমতা অর্জনের ধারাবাহিকতায় এই প্রথম বারের মত শুধুমাত্র বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর নিজস্ব টেকনিশিয়ান কর্তৃক একটি অত্যাধুনিক যুদ্ধবিমানের ওভারহোলিং এর কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে। এ কার্যক্রমের মাধ্যমে বৈদেশিক নির্ভরশীলতা কমিয়ে এখন থেকে বাংলাদেশ বিমান বাহিনী বিপুল পরিমান বৈদেশিক মূদ্রা সাশ্রয় করতে পারবে।
প্রধান অতিথি তার ভাষণে বিমান বাহিনীর নিজস্ব টেকনিশিয়ান দ্বারা যুদ্ধবিমানের ওভারহোলিং সম্পন্ন করায় বিমান বাহিনীর সদস্যদের নিষ্ঠা ও পেশাদারিত্বের জন্য সন্তোষ প্রকাশ করেন। এছাড়াও তিনি চীন সরকারকে সহযোগীতার জন্য ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন এবং চীনের সাথে বাংলাদেশের সম্পর্ক আরও সূদৃঢ় হবে বলে আশা প্রকাশ করেন।
অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ বিমান বাহিনী প্রধান এয়ার চীফ মার্শাল মাসিহুজ্জামান সেরনিয়াবাত, বিবিপি, ওএসপি, এনডিইউ, পিএসসি বিমান বাহিনীর নিজস্ব টেকনিশিয়ান কর্তৃক প্রথম বারের মতো যুদ্ধবিমান ওভারহোলিং করার সক্ষমতা অর্জনের জন্য গর্ববোধ করেন এবং সেই সাথে বিমান বাহিনীর অপারেশনাল সক্ষমতা উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাবে বলে আশা প্রকাশ করেন। উক্ত অনুষ্ঠানে নৌবাহিনী প্রধান এডমিরাল নিজামউদ্দিন আহমেদ, সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার লেঃ জেনারেল মোঃ মাহফুজুর রহমান, বিমান বাহিনীর উর্দ্ধতন কর্মকর্তাগণ, ঢাকাস্থ চীনা দূতাবাসের প্রতিনিধিগণ এবং অন্যান্য সামরিক ও বেসামরিক ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।