সর্বশেষ সংবাদ

“ADVANCED CHEMICAL SAFETY AND SECURITY MANAGEMENT” শীর্ষক সেমিনার সমাপ্ত

ঢাকা, ১৯ অক্টোবর ২০১৭: বাংলাদেশ জাতীয় কর্তৃপক্ষ, রাসায়নিক অস্ত্র কনভেনশন (বিএনএসিডব্লি¬উসি) এবং অর্গানাইজেশন ফর দ্যা প্রহিবিশন অব কেমিক্যাল উইপ›স (ওপিসিডব্লিউ) কর্তৃক আয়োজিত  “Advanced Chemical Safety and Security Management” শীর্ষক দুইদিন ব্যাপী আন্তর্জাতিক সেমিনারটি আজ বৃহস্পতিবার (১৯-১০-২০১৭) ঢাকাস্থ হোটেল রেডিসন ব্লু ওয়াটার গার্ডেন এর অন্তরা হলে সমাপ্ত হয়েছে।

সমাপনী অনুষ্ঠানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা বিষয়ক উপদেষ্টা মেজর জেনারেল তারিক আহমেদ সিদ্দিক (অবঃ) (Major General Tarique Ahmed Siddique (Retd) ) প্রধান অতিথি এবং নেদারল্যান্ডসে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত জনাব শেখ মোহাম্মদ বেলাল বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বিশ্ব শান্তি রক্ষায় বাংলাদেশের শান্তিরক্ষীদের গৌরবময় অবদানের কথা তুলে ধরে বলেন, বাংলাদেশ রাসায়নিক অস্ত্র কনভেনশনের সাক্ষরকারী প্রথমসারির দেশ হিসেবে কনভেনশন বাস্তবায়নের ব্যাপারে বদ্ধপরিকর। তিনি আরও উল্লেখ করেন যে, বাংলাদেশ জাতীয় কর্তৃপক্ষ রাসায়নিক দ্রব্যের অপব্যবহার রোধ এবং রসায়নের নিরাপদ ও শান্তিপূর্ণ ব্যবহার নিশ্চিতকরন তথা রাসায়নিক অস্ত্রমুক্ত পৃথিবী গড়ার লক্ষ্যে ওপিসিডব্লিউর সাথে একযোগে কাজ করে যাচ্ছে এবং এরই মাধ্যমে নিরাপদ বাংলাদেশ তথা নিরাপদ পৃথিবী গড়ার লক্ষ্যে দৃঢ় প্রত্যয়ী। পরিশেষে তিনি ওপিসিডব্লিউ কে ধন্যবাদ জানিয়ে আগামীতেও বাংলাদেশে এ ধরনের আর্ন্তজাতিক সেমিনার আয়োজন করার আহবান জানিয়ে সেমিনারের সমাপ্তি ঘোষণা করেন। সেমিনার শেষে প্রধান অতিথি সেমিনারে অংশগ্রহনকারীদের মধ্যে সনদপত্র বিতরণ করেন।

এছাড়াও চেয়ারম্যান, বিএনএসিডব্লি¬উসি লেফটেন্যান্ট জেনারেল মোঃ মাহফুজুর রহমান ingvb (Lieutenant General Md Mahfuzur Rahman), ঢাকাস্থ বিভিন্ন দূতাবাসের কূটনৈতিক ব্যক্তিবর্গ এবং বিভিন্ন সরকারী ও বেসরকারী সংস্থার উর্ধ্বতন কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন পর্যায়ের উল্লেখযোগ্য সংখ্যক প্রতিনিধি উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য যে, উক্ত সেমিনারটি গত ১৮ অক্টোবর ২০১৭ তারিখে শুরু হয়। ওপিসিডব্লিউ এর সদস্য রাষ্ট্রসমূহ হতে ১৭ জন এবং দেশের বিভিন্ন সরকারী, বেসরকারী ও স্বায়ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠান হতে ২০ জন সহ সর্বমোট ৩৭ জন প্রতিনিধি সেমিনারে অংশগ্রহন করেন। রাসায়নিক নিরাপত্তা ও সুষ্ঠ ব্যবস্থাপনার উপর উচ্চ পর্যায়ের ধারণা প্রদান ও সচেতনতা সৃষ্টি এই সেমিনারের মূল লক্ষ্য হিসেবে প্রতিপাদিত হয়।