বুধবার, ২৫শে মে ২০২২ ইং; ১১ই জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ২৩শে শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী
Home সেনা বাহিনী সেনাবাহিনী প্রধান কর্তৃক সাভার এরিয়ায় কৃষিপণ্য উৎপাদন প্রতিযোগিতা-২০২২ পরিদর্শন
R - 08
R - 07
R - 05
R - 04
R - 03
R - 02
R - 01

সেনাবাহিনী প্রধান কর্তৃক সাভার এরিয়ায় কৃষিপণ্য উৎপাদন প্রতিযোগিতা-২০২২ পরিদর্শন

141
0

ঢাকা, ১২ মে ২০২২ (বৃহস্পতিবার): সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ, এসবিপি, ওএসপি, এনডিইউ, পিএসসি, পিএইচডি আজ বৃহস্পতিবার (১২-৫-২০২২) সাভার সেনানিবাসে সাভার এরিয়ায় কৃষিপণ্য উৎপাদন প্রতিযোগিতা-২০২২ পরিদর্শন করেন। পরিদর্শনের পাশাপাশি তিনি সাভার ডিওএইচএস এলাকায় স্থাপিত সেনা পাবলিক স্কুল ও কলেজ এর নামফলক উন্মোচন করেন। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর কোয়ার্টার মাস্টার জেনারেল (কিউএমজি) লেফটেন্যান্ট জেনারেল মোঃ সাইফুল আলম, এসবিপি, ওএসপি, এসইউপি, এডব্লিউসি, পিএসসি, পিএইচডি, এ্যাডজুটেন্ট জেনারেল (এজি) মেজর জেনারেল মোঃ মোশফেকুর রহমান, এসজিপি,এসইউপি, এনডিসি, পিএসসি, সামরিক সচিব (এমএস) মেজর জেনারেল মোঃ খালেদ আল-মামুন, পিবিজিএম, এনডিসি, পিএসসি এবং জিওসি, ৯ পদাতিক ডিভিশন ও এরিয়া কমান্ডার সাভার এরিয়া মেজর জেনারেল মোহাম্মদ শাহীনুল হক, বিএসপি, এনডিসি, এইচডিএমসি, পিএসসি ।

 

খ্যাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের লক্ষ্যে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর যুগান্তকারী পদক্ষেপ (এক ইঞ্চি জমিও অনাবাদি রাখা যাবে না) বাস্তবায়নে সেনাবাহিনী প্রধানের দিকনির্দেশনায় সেনাবাহিনীর সকল এরিয়া মৌসুমভিত্তিক অব্যবহৃত/পতিত জমি কৃষিকাজে ব্যবহার করা হচ্ছে। সেনানিবাসের সকল অনাবাদী জমিতে, এমনকি প্রতিটি বাসা-বাড়ীর আনাচে-কানাচে লাগানো হয়েছে বনজ, ঔষধি ও ফলের গাছ। উন্মুক্ত স্থানে চাষ করা হচ্ছে নানা জাতের মৌসুমী ও বারোমাসি ফল এবং নানা ধরনের মৌসুমী শাকসবজি। পুকুর ও জলাভূমি ব্যবহার করা হচ্ছে মাছ এবং হাঁস চাষের জন্য বিভিন্ন প্রকার খামার ছাড়াও বায়োফ্লক পদ্ধতিতে উৎপাদিত হচ্ছে শিং ও তেলাপিয়া মাছ।

 

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অনুপ্রেরণার সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ এর বিশেষ উদ্যোগে সকল সেনানিবাসে কৃষি ভিত্তিক উৎপাদন দেশের অর্থনীতিকে গতিশীল রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে যাচ্ছে। মানুষের সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করতে এবং বাণিজ্যিক কৃষিতে উত্তরণের মাধ্যমে টেকসই উন্নয়নের অভীষ্ট লক্ষ্য অর্জনে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর এ প্রয়াস আগামীতেও অব্যাহত থাকবে।

(141)

Close